সর্বশেষ আপডেট :নভেম্বর ১৩, ২০১৯
Ovinews24

আমার কাছে এটি অনেক বড় সাফল্য-রুনা লায়লা

নভেম্বর ৮, ২০১৯

অভি মঈনুদ্দীন : কিছুক্ষণ আগেই কলকাতার এয়ারপোর্ট থেকে ঢাকার উদ্দেশ্যে রওয়ানা হয়েছেন উপমহাদেশের প্রখ্যাত সঙ্গীতশিল্পী রুনা লায়লা। ২০১৮ সালের জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারে শ্রেষ্ঠ সুরকার হিসেবে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারে ভূষিত হয়েছেন তিনি। চিত্রনায়ক ও পরিচালক আলমগীর পরিচালিত ‘একটি সিনেমার গল্প’ সিনেমায় একজন সুরকার হিসেবে কাজ করায় রুনা লায়লা প্রথমবারের মতো সুরকার হিসেবে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারে ভূষিত হলেন। অবশ্য সিনেমার গানের সুর করার মধ্যদিয়েই রুনা লায়লা প্রথম সুরকার হিসেবে নিজের অভিষেক ঘটান। সেই ক্ষেত্রে তার স্বামী ও নায়ক আলমগীরের বিশেষ ভূমিকাও ছিলো। গাজী মাজহারুল আনোয়ারের কথায় রুনা লায়লার সুরে এই সিনেমার ‘গল্প কথার ঐ কল্পলোকে জানি একদিন চলে যাবো’ গানটিতে কন্ঠ দিয়েছেন আঁখি আলমগীর। তিনিও প্রথমবারের মতো একজন সঙ্গীতশিল্পী হিসেবে ২০১৮ সালের জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারে ভূষিত হয়েছেন। কলকাতা থেকে রওয়ানা হবার আগে কথা হয় রুনা লায়লার সঙ্গে। প্রথম সিনেমাতেই সুর কওের একজন সুরকার হিসেবে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার প্রাপ্তিতে রুনা লায়লা বলেন,‘ সত্যি বলতে কী এই সিনেমাতে সিনেমার পরিচালকের আগ্রহেই আমার সুর করা। আবার আমারই ইচ্ছেতে সিনেমাটিতে আমার প্রথম করা সুরে আঁখির গান গাওয়া। যে গানের সুর করার জন্য আমার সুরকার হিসেবে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার প্রাপ্তি সেই একই গানের জন্য আঁখিরও চলচ্চিত্র পুরস্কার পাওয়া, বিষয়টি আমার কাছে অনেক বড় অর্জন হিসেবেই বিবেচিত হচ্ছে। ভীষণ আনন্দ লাগছে। সবচেয়ে বড় কথা হলো গানটিতে কন্ঠ দেয়ার পূর্বে আঁখি সত্যিই অনেক কষ্ট করেছে। নিজেকে গানটির জন্য তৈরী করে নিয়েই তারপর গানটিতে কন্ঠ দিয়েছে। আর পাশাপাশি গানটির জন্য চমৎকার অ্যারেঞ্জম্যান্ট করেছে ইমন সাহা। তারসঙ্গে আমার কাজের বোঝপড়াটা চমৎকার। যে কারণে আমি কী চেয়েছি না চেয়েছি তা জেনে বুঝেই ইমন একটি অসাধারন কাজ দাঁড় করিয়েছিলো। সবমিলিয়ে অবশেষে আমাদের এই সাফল্য আসলো। সিনেমার পরিচালক, আঁখি, ইমন, আমি আমরা সবাই এই সাফল্যে আনন্দিত। দর্শকের কাছে অনুরোধ থাকবে তারা যেন ভালো ভালো গানকে উৎসাহ দেন। তাতে করে একজন সঙ্গীত পরিচালক যেমন অনুপ্রাণিত হবেন ঠিক তেমনি শিল্পীও গাইতে আগ্রহী হবেন।’ অন্য কোন পরিচালকের সিনেমার সঙ্গীত পরিচালনা করার আগ্রহ আছে কী? এমন প্রশ্নের জবাবে রুনা লায়লা বলেন,‘ অবশ্যই আছে, কেন নয়। তবে আমাকে কাজ করার জন্য স্বাধীনতা দিতে হবে। আমাকে আমার মতো কাজ করতে দিতে হবে, যাতে নিজে পূর্ণ স্বাধীনতা নিয়ে মনের মতো কাজ করতে পারি।’ কলকাতার স্টার জলসা চ্যানেলে আগামী ১৭ নভেম্বর রুনা লায়লা’র জন্মদিন উপলক্ষ্যে ‘কে আপন কে পর’ ধারাবাহিকের বিশেষ পর্ব নির্মিত হয়েছে। এই ধারাবাহিকের রুনা লায়লা’কে বিশেষভাবে উপস্থাপন করা হবে বলে জানা যায়। আজ বিকেলের মধ্যেই রুনা লায়লা কলকাতা থেকে ঢাকায় ফিরবেন।

Leave a Reply

এটাও পছন্দ করতে পারেন

প্রকাশিত হলো তাদের ‘কোথাও কেউ নেই’

বশির আহমেদ’র ৮০’তম জন্মদিনে তাদের শ্রদ্ধাঞ্জলী

৩৫ বছর পর জাতীয় চলচ্চিত্র সম্মানায় উচ্ছসিত আঁখি

কাল প্রকাশ পাচ্ছে ইউসুফ-আনিকা’র ‘কোথাও কেউ নেই

দেশাত্ববোধক গানে সেরাকন্ঠের সেই তিন্নি

রুনা লায়লা’র জন্মদিনে ‘স্টার জলসা’র বিশেষ আয়োজন

Copy link
Powered by Social Snap