সর্বশেষ আপডেট :অক্টোবর ১৮, ২০১৯
Ovinews24

কুমার শানুর সঙ্গে সেই স্মৃতি’র কথা……

আগস্ট ১৬, ২০১৯

কুমার শানু, …সংগীতের আকাশের এক ঈর্ষনীয় নক্ষত্রের নাম । তার একটি অনুষ্ঠানের উপস্থাপনা করার সযুোগ হয়েছিলো অধরা জাহানের। উপমহাদেশের প্রখ্যাত এই সঙ্গীতশিল্পীকে নিয়ে স্মৃতিচারণ করেছেন অধরা।
আমার ভাষ্যমতে শ্রদ্ধেয় কুমার শানু অনন্য উচ্চতাশীল মর্যাদার সংগীতের এক বরপুত্র । অধিক সংখ্যক দর্শক নন্দিত গানের শিল্পী তিনি।শুরু থেকে এখানো জনপ্রিয়তার শীর্ষেই তার অবস্থান প্রতিদন্দিতাহীন ভাবেই। তার শিল্পী জীবনে অগনিত রেকর্ড আছে, তার মধ্যে অন্যতম,অল ইন্ডিয়া ঘুরে সংগীতের এই ফেরিওয়ালা এমন করেছেন যে,
একি দিনে ৮/১০ টি গানেরও রেকর্ড করেছেন।
যেমন সকালে যদি দিল্লিতে, তো দুপুরে বোম্বে,তারপর কোলকাতায়। একজন শিল্পীর জীবনে এই অপরিমেয় দায়িত্বশীলতা এক অনন্য দৃষ্টান্তের প্রতীক এবং তিনি যখন যে ভাষায় যে মিউজিক ডিরেক্টরদের সাথেই কাজ করেছেন,সবাই তার প্রতি সন্তুষ্ট থেকেছেন,কেননা গুনি এই শিল্পীর ভিন্ন ভিন্ন ভাষার প্রতিও রয়েছে জোরালো দখল। একজন শিল্পী সে যে বিষয়ে শিল্প সত্বা বহন করে চলেন,তার বাইরেও বড়ো শিল্পসত্বা হলো, সাধারণ মানুষকে অসাধারণ দক্ষতায় আপন করে নেওয়া। যার পুরোটাই উনার আছে বলে আমি মনে করি।। কারণ আগের রাতে উনার সাথে প্রোগ্রাম শেষ করেও উনার প্রতি ঘোর কাটেনি,
তাই সকালে ঘুম ভেঙেই ছুটে গিয়েছিলাম উত্তরা ক্লাবে প্রিয় শিল্পীকে আর একটি বার দেখবো বলে,গানের গল্প শুনবো বলে। যখন উনার কাছে গিয়ে পৌছাই তার ঘন্টা তিন বাদেই উনার ফ্লাইট। বের হওয়ার প্রস্তুতি চলছিলো।তবুও শানু’দা কি অসাধারণ আন্তরিকতায় উনার পাশেই বসিয়ে অনেক রকম স্মৃতি চারণ করলেন এবং একজন সঞ্চালিকা হিসেবে যে সম্মানটা তিনি দিয়েছিলেন আমাকে,ওটাই আমার কাছে একজন শিল্পীর প্রথম এবং প্রধান শিল্প সত্বা। মানুষকে আপন করে নেওয়া,পূর্ণ সম্মান দেয়া এটাও আমার কাছে সংগীতের মতো অনুশীলনের একটা বিষয়।। যা কাজ করতে গিয়ে অনেক বড়োদের কাছ থেকেই পাই। আমাদের এই প্রজন্ম অকৃতি অধম, আমাদের উচিৎ উনাদের গানের পাশাপাশি এই সুন্দর বিষয় গুলোও নিজের মাঝে লালন করা।। অনেক শিল্পী আছেন,গান করে গেছেন গুটি কয়েক,কিন্তুু তারা জগৎ বিক্ষাত। কুমার শানু নামটিও পৃথিবী জুড়া পরিচিত।

কুমার শানুর সঙ্গে অধরা জাহান

বিভিন্ন ভাষায় গান গেয়েছেন প্রায় ৮০ হাজারেরও বেশি।।
যা সংগীত ভুবনে হিমালয় সমান। সংগীতের বরপুত্র কুমার শানু, যে স্বপ্ন থেকে বাস্তবের মাটিতে এলেও ওটাকেও স্বপ্নই মনে হয়।। কারণ উনার এমন কিছু গুণ আছে যা দেখে সত্যি বিশ্বাস করতে কষ্টই হয় যে উনি কুমার শানু এতো আন্তরিক, এতো ঐশ্বরিক।
যেখানে উনার সমমানের মানুষ গুলো বেশিরভাগ সময় দেখা যায় বড্ড অহংকারী আর আমিত্ব বিষয়টা সাথে নিয়েই মানুষের সাথে চলা এবং বলা। শানু’দার সাথে আমার শেষ বাক্য বিনিময়, তুমি খুব বিনয়ী, শিল্পীর প্রতি সম্মানটাও খুব সম্মানের সাথেই দাও-গো দিদি। কোলকাতা এলে বেড়াতে এসো। দ্বিলিপের (উনার সহকারী) নাম্বারটা রাখো। নিশ্চয়ই আবারো দেখা হবে কাজ হবে,
তোমার নামটা কিন্তুু বেশ সুন্দর দিদি।।
শ্রদ্ধেয়, প্রিয় শানু’দা,
আপনার সাথে একি মঞ্চে দাড়াবার স্বপ্নদের আমি ছুটি দেবোনা কোনদিনই।। আমার বৃদ্ধ বয়সেও আপনার সাথে একি মঞ্চে দাড়িয়ে আপনার নামটি উচ্চারণ করতে চাই।।
সুরের মতো সুন্দর আর পবিত্র হোক আপনার জীবন,,,

Leave a Reply

এটাও পছন্দ করতে পারেন

‘কৃষ্ণলীলা’র জন্য সাড়া পাচ্ছেন বিন্দু কণা

হয়ে গেলো বিউটির স্বপ্ন পূরণ

ফাহমিদা নবীর সুরে গাইলেন সৈয়দ আব্দুল হাদী

স্টেজ শো’তে অপ্রতিদ্বন্দ্বী আঁখি আলমগীরের ব্যস্ততা শুরু

বিরতির পর সিনেমার গানে দিঠি আনোয়ার

সেই পুতুলের ‘চোখের কোণে জল’

Copy link
Powered by Social Snap