সর্বশেষ আপডেট :December 6, 2019
Ovinews24

গানে ফিরবেন ডা. ঝুমু খান

September 21, 2019

বিনোদন প্রতিবেদক : ডা. ঝুমু খান, পেশায় মূলত তিনি একজন ডাক্তার। তবে ডাক্তার হবার অনেক আগেই তিনি একজন সঙ্গীতশিল্পী হিসেবেই নিজের আত্নপ্রকাশ ঘটিয়েছিলেন। ১৯৯৪ সালে প্রথম প্রকাশিত হয় তার একক অ্যালবাম ‘চন্দ্রিমা রাতে’। এই অ্যালবামের ‘পান খাইতে চুন লাগে’ গানটি সেই সময় বেশ জনপ্রিয়তা পেয়েছিলো। গানটি লিখেছিলেন হাসান মতিউর রহমান এবং সুর করেছিলেন মানাম আহমেদ। গানটির জনপ্রিয়তার কারণে পরবর্তীতে তোজাম্মেল হক বকুল পরিচালিত ‘বাঁশিওয়ালা’ সিনেমায় গানটি ব্যবহৃত হয়েছিলো। তবে সিনেমার জন্য তিনি প্রথম গান গেয়েছিলেন মনতাজুর রহমান আকবর পরিচালিত মান্না চম্পা অভিনীত ‘প্রেম দিওয়ানা’ সিনেমাতে। এই সিনেমার জনপ্রিয় একটি গান ছিলো ‘এই বুকে হায় জ্বলে আগুন তুমি কী বুঝোনা’। গানটি লিখেছিলেন মুনশী ওয়াদুদ এবং সঙ্গীত পরিচালনা করেছিলেন শেখ সাদী খান। সেই সময় সিনেমাতে প্লে-ব্যাক সিঙ্গার হিসেবে জাহানারা ফেরদৌস খান ঝুমু নামেই তার যাত্রা শুরু হয়েছিলো। অবশ্য নবাগতা হিসেবে সঙ্গীতারও এই সিনেমাতে অভিষেক হয়। এরপর ঝুমু খান ‘মৌসুমী’ সিনেমায় শাকিলা জাফরের সঙ্গে ‘বন্ধু হয়ে কাছে এলে’, শাবনূরের প্রথম সিনেমা ‘চাঁদনী রাতে’তে ‘তুমি কী কী কী বুঝো না না না, তোমার প্রেমে আমি দিওয়ানা’ গানটি’সহ ‘হাঙ্গর নদী গ্রেনেড’ ও আরো বেশ কয়েকটি সিনেমায় গান করেন তিনি। ঝুমু খানের অন্যান্য একক অ্যালবামগুলো হচ্ছে ‘সরল মনে’, ‘দুই লাইনের চিঠি দিলানা’,‘ হৃদয়ে তুমি’। সর্বশেষ ২০১৩ সালে ডিএলএম থেকে ‘অজানায়’ নামের একটি অ্যালবাম প্রকাশিত হয়। এরপর তাকে আর গানে পাওয়া যায়নি। কারণ ডাক্তার হিসেবেই তার কর্ম ব্যস্ততা অনেক বেশি। তবে ইচ্ছে করে মাঝে মাঝে নতুন নতুন গান করার।

ঝুমু খান বলেন,‘ সত্যি বলতে কী এখন আমার গান গাওয়ার চেয়ে গান শুনতেই বেশি ভালোলাগে। শাহনাজ আপা, রুনা আপা, সাবিনা আপা তাঁদের গান শুনতে শুনতেই বড় হয়েছি। পরবর্তীতে সামিনা আপা, ফাহমিদা আপার গানও মন ছুঁয়ে গেছে। এই প্রজন্মের অনেকের গানই ভালোলাগে আমার। গানের কথা এবং সুর ভালো লাগলেই তা আমি শুনি। গানে নতুন একটি ধারা এসেছে, এই ধারাটা আমার খুউব ভালোলাগে। আর ভালোলাগে বিধায়ই মাঝে মাঝে মনে হয় নতুন গান করি। দেখা যাক কী হয়, হঠাৎ করেই নতুন গান করেও ফেলতে পারি।’ এদিকে আজ ঝুমু খানের জন্মদিন। জন্মদিনে একমাত্র ছেলে এলমানের স্কুলে কিছুটা সময় কাটিয়ে রাজধানীর সেগুন বাগিচায় একটি স্কুলে যাবেন। সেখানে সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের প্রত্যেক বছরের ন্যায় এই বছরেও একটি স্কলার্শিপ দিবেন। ঝুমু খান নিজের হাতে সেইসব বাচ্চাদের স্কলার্শিপ তুলে দেন। এরপর তিনি রাজধানীর গুলশান এভিনিউতে ‘লেজার মেডিক্যাল সেন্টার লিমিটেড’এ পেশাগত কাজে বসবেন সন্ধ্যা পর্যন্ত। এরপর পুরোটা সময়ই পরিবারের সঙ্গে কাটাবেন তিনি। ঝুমু খানের বাবা এ কে এম জাহাঙ্গীর খান জীবন্ত কিংবদন্তী চলচ্চিত্র প্রযোজক, যাকে মুভি মোঘল হিসেবে অভিহিত করা হয়।

Leave a Reply

এটাও পছন্দ করতে পারেন

সংবাদ পাঠে মুন্নীর দুই দশক, ১২ বার শ্রেষ্ঠত্বর পুরস্কারে ভূষিত

স্ত্রীর জন্মদিনে আমিন খানের সারপ্রাইজ

জন্মদিনেও শুটিং-এ সাজু খাদেম

‘তোর মনপাড়া’য় খ্যাত রাসেলের জন্মদিন আজ

শুভ জন্মদিন ইউসুফ আহমেদ খান

শুভ জন্মদিন জাহিদ হাসান

Copy link
Powered by Social Snap