সর্বশেষ আপডেট :December 6, 2019
Ovinews24

নির্মাতা, শিল্পীদের আস্থায় রাজু রাজ…

August 21, 2019

বিনোদন প্রতিবেদক : রাজু রাজ, এই সময়ের একজন মেধাবী সিনেমাটোগ্রাফার। তার ক্যামেরার কারিশ্মায় মুগ্ধ হন নির্মাতা, শিল্পী সর্বোপরি দর্শকও। যে কারণে নির্মাতা ও শিল্পীদের কাছে কাজের ক্ষেত্রে আস্থার এক বড় নির্ভরযোগ্য স্থান রাজু রাজ। অবশ্য রাজু রাজও নিজেকে অনেক শ্রম দিয়ে, দিনের পর দিন চেষ্টায় নিজেকে অব্যাহত রেখে আজকের এই অবস্থানে পৌঁছেছেন। তাই এখন অনায়াসেই তাকে নিয়ে নির্মাতারা কাজ করেন। আবার দেখা যায় অনেক শিল্পীও তার নাম রেফারেন্স হিসেবে বলে থাকেন। বর্তমানে কানাডায় স্থায়ীভাবে নিবাসী সিনেমাটোগ্রাফার অপু রোজারিওর সহকারী হিসেবে একবছর কাজ করেন। এরপর নিজেই সিনেমাটোগ্রাফার হিসেবে কাজ শুরু করেন। প্রথমেই তিনি সার্ফ এক্সেল’র বিজ্ঞাপনের সিনেমাটোগ্রাফার হিসেবে কাজ শুরু করেন। এরপর আরো অনেক বিজ্ঞাপনে কাজ করেন। হাবিবের ‘হারিয়ে ফেরা ভালোবাসা’ গানের মিউজিক ভিডিওর ডিরেক্টও অব ফটোগ্রাফি রাজু রাজের মিউজিক ভিডিওর প্রথম কাজ। অবশ্য এরপর তিনি মমতাজের ‘লোকাল বাস’, লুইপার ‘জোছনা করেছে আঁড়ি’, মিনারের ‘ঝুম’সহ আরো বেশ কয়েকজন শিল্পীর গানের ডিরেক্টর অব ফটোগ্রাফি হিসেবে কাজ করেছেন। নাটকের শুরুটা তার মনে না থাকলেও সিনেমাটোগ্রাফার হিসেবে নাটকই তিনি বেশি কাজ করেছেন। তবে ভীষণ স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করেন এবং গর্ববোধ করেন তিনি সিনেমার সিনেমাটোগ্রাফার হিসেবেই কাজ করতে। যেমন এই মুহুর্তে রাজু রাজ ব্যস্ত আছেন বরিশালের বসুরহাটে ফেরদৌস পূর্ণিমা অভিনীত নঈম ইমতিয়াজ নেয়ামুল পরিচালিত ‘গাঙচিল’ সিনেমার কাজ নিয়ে। এই সিনেমার কাজ শেষ হতে না হতেই তিনি একই পরিচালকের ‘জ্যাম’র কাজ শেষ করবেন। আবার তার পরপরই তিনি মুহাম্মদ মোস্তফা কামাল রাজের নতুন একটি সিনেমার সিনেমাটোগ্রাফি করবেন তিনিই। একের পর এক সিনেমার কাজ কিংবা নাটকের কাজই প্রমাণ করে একজন ডিওপি কিংবা সিনেমাটোগ্রাফার হিসেবে রাজু রাজের গ্রহণযোগ্যতা কতোটুকু।

অবশ্য নিজের ব্যস্ততা নিয়ে তার তেমন কোন ভাবনা নেই। তার কাছে কাজটাই সবসময় প্রাধান্য পেয়ে আসছে। তবে রাজু রাজ জানান কাজে নামার আগে বিশেষত সিনেমার কাজ শুরুর আগে তিনি স্ক্রিপ্টটা ভালোভাবে পড়ে নেন। তাতে নিজের মাথায় মনেরমতো করে ফ্রেমগুলোও তৈরী করে নিতে পারেন। রাজু রাজ বলেন,‘ আমার আজকের অবস্থানের পেছনে আমার আন্তরিক চেষ্টা এবং সবার সহযোগিতা বিশেষভাবে উল্লেখযোগ্য। কাজ করতে গিয়ে অবশ্যই মনে পড়ে আমার শুরুটা যার হাত ধরে সেই অপু রোজারিও দাদার কথা। তবে এটা সত্যি সিনেমার কাজই করতে ভীষণ ভালোলাগে। কারণ অনেক দায়িত্ব নিয়ে শতভাগ মনোযোগ দিয়ে কাজ করতে হয়।’ রাজু রাজ নিজেকে আরো অনেকদূর নিয়ে যেতে চান। চান আন্তর্জাতিক অঙ্গনে কাজ করতে। একজন বাংলাদেশী সিনেমাটোগ্রাফার হিসেবে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে নিজের মেধার স্বাক্ষর রাখতে চান। রাজু রাজের প্রিয় অভিনেতা অপূর্ব ও আফরান নিশো, প্রিয় অভিনেত্রী মেহজাবিন চৌধুরী। সিনেমা’য় তার যাত্রা শুরু ‘আদি’ সিনেমা দিয়ে হলেও শাকিব খান বুবলীর ‘বসগিরি’টাই দর্শকের সামনে প্রথম আসে। এরপর তিনি ‘রংবাজ’, ‘নোলক’, ‘স্বপ্নবাড়ি’, ‘সাপলুডু’ সিনেমার কাজ করেছেন। গেলো ঈদে ডিওপি হিসেবে কাজ করেছেন মিজানুর রহমান আরিয়ানের ‘সাবলেট’,‘ রঞ্জনা আমি আবার আসবো’ মোস্তফা কামাল রাজের ‘শিশির বিন্দু টু’,‘ এনায়েত’ ও অমির ‘মি অ্যা- ইউ’,‘ইনকমপ্লিট’ নাটকের। বাংলাদেশে রাজু রাজের প্রিয় সিনেমাটোগ্রাফার কামরুল হাসান খসরু। রাজু রাজের গ্রামের বাড়ি বাগেরহাটের মোল্লারহাট। তার বাবা আশরাফ হোসেন ও মা ফাতেমা বেগম। তার একমাত্র ছোট বোন লিন্তি। রাজুর স্ত্রী চিন্ময়ী গুপ্তা ও একমাত্র সন্তান আগন্তুক।
ছবি : মোহসীন আহমেদ কাওছার

Leave a Reply

এটাও পছন্দ করতে পারেন

‘অন্যরকম ভালোবাসা’ দিয়ে শায়লা সাবির ফেরা

সাঁতারে ‘আইরিন তানি’

সালমান শাহ’তে অনুপ্রাণিত হয়ে ঝিটকার সেই ছেলেটি

বাংলাদেশের শ্রেষ্ঠ ওয়েডিং ফটোগ্রাফার ইশরাত, প্রশংসায় ভাসছেন তিনি

‘ঝুমুর’ চরিত্রে আলোচনায় সারিকা সাবাহ্

অপেক্ষা সিনেমার…

Copy link
Powered by Social Snap