সর্বশেষ আপডেট :অক্টোবর ১৮, ২০১৯
Ovinews24

প্রধানমন্ত্রীর সহযোগিতা চান চঞ্চল মাহমুদ ও তার স্ত্রী

অক্টোবর ৭, ২০১৯

অভি মঈনুদ্দীন : বাংলাদেশে মডেলিং ফটোগ্রাফির অগ্রপথিক কিংবদন্তী ফটোগ্রাফার চঞ্চল মাহমুদ তারই সহধর্মিনী রায়না মাহমুদের ক্যান্সারের দু:শ্চিন্তায় গত রবিবার রাতে আবারো হার্ট অ্যাটাক করেন। রাজধানীর ল্যাবএইড হাসপাতালের সিসিইউ’তে নিবিড় পর্যবেক্ষনে চিকিৎসাধীন আছেন। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন চঞ্চল মাহমুদের স্ত্রী রায়না মাহমুদ। বঙ্গবন্ধুর মৃত্যুর পর তার মৃত্যুতে শোক প্রকাশ পরে আজ পর্যন্ত তিনি কালো পোশাকই পড়েন। এদিকে গেলো শনিবার সন্ধ্যায় চঞ্চল মাহমুদ তার স্ত্রী’র ক্যান্সারে আক্রান্ত হওয়া নিয়ে নিজের ফেসবুক ওয়ালে একটি পোষ্ট করেন। তাতে তিনি লিখেন,‘ আমার স্ত্রী রায়না মাহমুদ মিতুর শরীরে ক্যান্সার ধরা পড়েছে। চিকিৎসা শুরু হয়েছে – আর এজন্য অনেক টাকার প্রয়োজন – আর আমারও এ পর্যন্ত তিন বার হার্ট অ্যাটাক হয়েছে – আমারও চিকিৎসা চলছে। বিগত একযুগে বছরে আমাদের সবকিছুই শেষ। আমাদের দু’জনের চিকিৎসা চালানো আর সম্ভব হচ্ছে না। অনেক টাকাই দরকার মিতুর ক্যান্সার চিকিৎসার জন্য – কয়েকদিনের মধ্যে মিতুকে টাটা মেমোরিয়াল হাসপাতালে ভর্তি করে চিকিৎসা চালিয়ে যেতে হবে। তাই আমার প্রিয় বন্ধুরা – আমাদেরকে আর্থিকভাবে যারা সাহায্য করতে চান, তারা দয়া করে যোগাযোগ করবেন এই নম্বরেঃ চঞ্চল মাহমুদ : ০১৭১১৫২২১২৬। একাউন্ট নাম : চঞ্চল মাহমুদ ফটোগ্রাফি, ব্যাংকের নাম : ঢাকা ব্যাংক লিমিটেড, ধানমণ্ডি শাখা, ব্যাংক একাউন্ট নম্বরঃ ২০৫-১০০-৮৯৬২। আমরা দুই জনই এতিম, ভাই-বোন কেউই নাই। এছাড়া আমি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আপার দৃষ্টি আকর্ষণ করছি – এই মহা বিপদের হাত থেকে আমাদেরকে রক্ষা করুন, প্লিজ।’

চঞ্চল মাহমুদের তোলা ছবি দিয়েই ফটোসুন্দরী হয়েছিলেন প্রিয়দর্শিনী মৌসুমী..এমন হাস্যোজ্জ্বল সময় আবার ফিরে আসুক-ছবি : মোহসীন আহমেদ কাওছার

চঞ্চল মাহমুদের স্ত্রী রায়না মাহমুদ বলেন,‘ আমার নিজের চিকিৎসার চেয়ে আমার স্বামীর চিকিৎসাটা এখন বেশি জরুরী। কারণ তিনিই যদি না থাকেন, আমার বেঁচে থেকে কী হবে। আমরা দু’জন এই মুহুর্তে খুউব অসহায় হয়ে পড়েছি। জানিনা আল্লাহ ভাগ্যে কী রেখেছেন। কী হবে সামনের দিনগুলোতে ভাবলেই কান্না চলে আসে। আমি আমাদের পরম মমতাময়ী মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে বিনীত অনুরোধ করছি তিনি যেন আমাদের এই দু:সময়ে আর্থিক সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিয়ে আমাদের পাশে থাকেন। তার দয়ার ভাণ্ডার থেকে আমাদের যেন একটু দয়া করেন। জীবনের এই প্রান্তে এসে এতোটা অসহায় হয়ে পড়বো, ভাবিনি কখনো। তাই আমরা এতিম দুটি মানুষের পাশে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সহযোগিতাটা অন্তর থেকে কামনা করছি। আমার বিশ্বাস আমাদের এই আবদার তার কান পর্যন্ত পৌঁছালে নিশ্চয়ই তিনি সাড়া দেবেন।’ চঞ্চল মাহমুদের হাত ধরেই সালমান শাহ, প্রিয়দর্শিনী মৌসুমী, শাবনূর, পপি’র সিনেমায় যাত্রা শুরু। তার কাছেই তাদের প্রথম ছবি তোলা। অন্যদিকে নোবেল, মৌ, তানিয়া, পল্লব, ফয়সাল, সুইটি, বিপাশা, শমী কায়সার, মিমি’সহ আরো অনেক তারকারই প্রথম চঞ্চল মাহমুদের ক্যামেরার সামনে প্রথম দাঁড়ান। বাংলাদেশের সংষ্কৃতি অঙ্গনে একজন চঞ্চল মাহমুদের অবদান অপরিসীম। কিন্তু জীবনের যাঁতাকলে আজ তিনি নি:স্ব। আমাদের বিশ্বাস নি:স্ব এই মানুষটি আর তার সহধর্মিনীর পাশে দাঁড়াবেন প্রধানমন্ত্রী’সহ যার যার সামর্থ থেকে।

Leave a Reply

এটাও পছন্দ করতে পারেন

একজন সাচ্চু অনেকের পথ প্রদর্শক

শুভ জন্মদিন সুর স্রষ্টা ফরিদ আহমেদ

লাইফটাইম অ্যাচিভম্যান্ট অ্যাওয়ার্ডে ভূষিত গাজী মাজহারুল আনোয়ার

Copy link
Powered by Social Snap