সর্বশেষ আপডেট :December 6, 2019
Ovinews24

ম্যাজিক্যাল মিউজিসিয়ান আলমগীর হোসেন সাফল্যের দুই দশক পেরিয়ে …

August 22, 2019

অভি মঈনুদ্দীন : বাংলাদেশের সঙ্গীতাঙ্গনের কিংবদন্তী শিল্পী থেকে শুরু করে এই প্রজন্মের তরুণ জনপ্রিয় সঙ্গীতশিল্পীদের কাছে প্রিয় এক মিউজিসিয়ানের নাম আলমগীর হোসেন। দীর্ঘ দুই দশকের বেশি সময় ধরে তিনি বেশ সুনামের সঙ্গে ড্রামস বাজিয়ে আসছেন। ড্রামস বাজানোতে তার দক্ষতাই তাকে আজকের শক্ত একটি অবস্থানে নিয়ে এসেছে। রুনা লায়লা, সাবিনা ইয়াসমিন, সুবীর নন্দী, আইয়ূব বাচ্চু থেকে শুরু করে আজকের তরুণ অনেক সঙ্গীতশিল্পীর সঙ্গেই আলমগীর হোসেন ড্রামস বাজিয়ে তাদের সঙ্গীতানুষ্ঠানকে সুরের মুর্ছনায় ভাসিয়ে তুলেছেন। ছোট্টবেলা থেকেই আলমগীর হোসেনের চোখে মুখে স্বপ্ন ছিলো দেশের গুনী সঙ্গীতশিল্পীদের সঙ্গে একজন মিউজিসিয়ান হিসেবে কাজ করার। সেই স্বপ্নই একসময় পূর্ণ হলো তার। সময়ের ধারাবাহিকতায় আলমগীর হোসেন সঙ্গীতশিল্পীদের কাছে এক নির্ভরতার নাম। আলমগীর হোসেনের জন্ম নানার বাড়ি জয়পুর হাটে। তার বাবার বাড়ি পাবনা। ১৯৮৫ সাল থেকে বাবা আসির উদ্দিনের চাকুরীর সুবাদে ঢাকাতেই বসবাস করছেন। ১৯৯৭ সালে তিনি বিটিভিতে তবলা বাজাতেন। ১৯৯৮ সালে চার বন্ধু আলমগীর, সোহেল, টুটুল ও সুমন মিলে ‘ধুমকেত’ নামের একটি ব্যাণ্ড দল গড়ে তুললেও ২০০০ সালে এসে তারা নিজেদের ব্যাণ্ড দলের পাশাপাশি আঁখি আলমগীর, মনির খান’সহ আরো অনেক শিল্পীদের সঙ্গে যন্ত্র সঙ্গীতশিল্পী হিসেবে কাজ শুরু করেন। ২০০০ সালে আলমগীর তবলার পাশাপাশি ড্রামসও বাজাতে শুরু করেন। সেই থেকে এখন পর্যন্ত বেশ সাফল্যের সাথেই একজন যন্ত্র সঙ্গীতশিল্পী হিসেবে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন। দীর্ঘদিনের এই পথচলায় তিনি একজন ড্রামার হিসেবে সবচেয়ে বেশি কাজ করেছেন সামিনা চৌধুরীর সঙ্গে। একজন যন্ত্র সঙ্গীতশিল্পী হিসেবে কাজ করা প্রসঙ্গে আলমগীর হোসেন বলেন,‘ এই দেশের প্রেক্ষাপটে একজন যন্ত্র সঙ্গীতশিল্পী হিসেবে আমি আসলে অনেক কিছুই পেয়েছি। পেয়েছি চেনা জানা, অজানা অনেক মানুষের দোয়া, ভালোবাসা। পেয়েছি কিংবন্তী শিল্পীদের স্নেহ , আদর। ছোটবেলায় বড় বড় শিল্পীদের সঙ্গে বাদ্য যন্ত্র বাজানোর স্বপ্ন দেখতাম। মানুষ মন থেকে কিছু চাইলে সেই স্বপ্ন যে পূরণ হয় তা নিজেকে দিয়ে অনুধাবন করতে পারি। মহান আল্লার কাছে অসীম কৃতজ্ঞতা, আর যারা বিভিন্ন সময় সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে পাশে ছিলেন তাদের প্রতিও আন্তরিক কৃতজ্ঞতা।’

স্ত্রী ও কন্যা’র সঙ্গে আলমগীর হোসেন। গোলাম সাব্বিরের ক্যামেরায়….

আলমগীর হোসেনের মা মিসেস সাহারা বেগম। তার স্ত্রী জিনিয়া জাফরিন লুইপা এই প্রজন্মের একজন নন্দিত কন্ঠশিল্পী। দু’জনই একই পেশার হওয়া প্রসঙ্গে আলমগীর বলেন,‘ সত্যি বলতে কী আমি আর লুইপা দু’জনই গানের মানুষ হওয়াতে সুবিধা হলো দু’জনের মধ্যে কাজের বোঝাপড়াটা আমাদের চমৎকার। অন্য কোন পেশার কেউ যদি আমার সহধর্মিনী হতো সেক্ষেত্রে হয়তো আমার জন্য আমার পেশাটাকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়া কঠিনই হতো।’ এদিকে কাল আলমগীর হোসেনের জন্মদিন। তার জন্মদিনের নানান আয়োজন লুইপাই করে থাকেন। আলমগীরের প্রিয় কন্ঠশিল্পী রুনা লায়লা, সাবিনা ইয়াসমিন, কনকচাঁপা ও এই প্রজন্মের প্রিয়াংকা গোপ। একজন যন্ত্র সঙ্গীতশিল্পী হিসেবে কাজ করার পাশাপাশি এখন কম্পোজিসন নিয়েও কাজ করছেন আলমগীর। ২০০৪ সালে হংকং-এ প্রথম বিদেশ ট্যুর ছিলো তার। এরপর আরো বহুদেশে তিনি গিয়েছেন। সম্প্রতি স্ত্রী লুইপা ও কন্যা পায়রাকে নিয়ে রাশিয়া ঘুরে এসেছেন আলমগীর।
ছবি : গোলাম সাব্বির

Leave a Reply

এটাও পছন্দ করতে পারেন

সংবাদ পাঠে মুন্নীর দুই দশক, ১২ বার শ্রেষ্ঠত্বর পুরস্কারে ভূষিত

স্ত্রীর জন্মদিনে আমিন খানের সারপ্রাইজ

জন্মদিনেও শুটিং-এ সাজু খাদেম

‘তোর মনপাড়া’য় খ্যাত রাসেলের জন্মদিন আজ

শুভ জন্মদিন ইউসুফ আহমেদ খান

শুভ জন্মদিন জাহিদ হাসান

Copy link
Powered by Social Snap