সর্বশেষ আপডেট :অক্টোবর ১৮, ২০১৯
Ovinews24

লেডিস আড্ডা’য় মুগ্ধতার রেশ ছড়ালেন ইউসুফ-লুইপা

অক্টোবর ৬, ২০১৯

বিনোদন প্রতিবেদক : শ্রোতা দর্শক এবং শিল্পীর মধ্যে সমন্বয় চমৎকার হলে যেকোন স্টেজ শো যে অনন্য অসাধারণ হয়ে উঠতে পারে যেন তারই প্রমাণ মিলেছে গেলো শনিবার দুপুরে। রাজধানীর উত্তরা ক্লাবে ‘লেডিস আড্ডা’র আয়োজনে সংস্কৃতি পর্বে সঙ্গীত পরিবেশন করেন সেরা কন্ঠের দুই সেরা শিল্পী ইউসুফ আহমেদ খান ও জিনিয়া জাফরিন লুইপা। অনুরোধে নজরুল সঙ্গীত ‘মোর প্রিয়া হবে এসো রানী দেবো খোঁপায় তারার ফুল’ গানটি যখন ইউসুফ পরিবেশন করেন তখন হল ভর্তি লেডিস’দের মধ্যে ভালোলাগার এক অন্যরকম মুগ্ধতা ছড়িয়ে পড়ে। হলভর্তি লেডিসরা হাততালি দিয়ে ইউসুফের অসাধারণ গায়কীর প্রশংসা করেন। তবে তার আগে অনুষ্ঠানের শুরুতেই লুইপা’র কন্ঠে ‘এ শুধু গানের দিন এ লগনও গান শোনাবার’ গান যেন সবার মন ছুঁয়ে যায়। প্রতিজনেই জানেন লুইপা’র কন্ঠে গান এক অন্যরকম সুরের মুর্ছনা সৃষ্টি করে। লুইপার একক কন্ঠে গাওয়া আকাশের হাতে আছে এক রাশ নীল, এ কী সোনার আলোয় জীবন ভরিয়ে দিলে, আমার বলার কিছু ছিলোনা, যে ছিলো দৃষ্টির সীমানায়, মধুমালতি ডাকে আয়’ এই পুরোনো গানগুলো সবার প্রাণে প্রাণে এতোটাই শিহরণ সৃষ্টি করে যে যতোটা সময় লুইপা গান গাইছিলেন ততোটা সময়ই যেন উপস্থিত লেডিসরা তারসঙ্গে তাল মিলিয়ে গাইছিলেন। গানে গানে প্রাণে প্রাণে এক অন্যরকম সুরের মুর্ছনার সৃষ্টি হয়েছিলো সেদিন দুপুর থেকে বিকেল পর্যন্ত। এক সময় ইউসুফ ও লুইপার কন্ঠে ‘তুমি যে আমার কবিতা’,‘ ও আমার বন্ধুগো চির সাথী পথচলার’ গান দুটিও সবার মধ্যে ভালোলাগার সৃষ্টি করে। অনুরোধের গান শোনাতে গিয়ে ইউসুফও পরিবেশন করেন চোখ যে মনের কথা বলে, সবাইতো মুখী হতে চায়, আয়নাতে ঐ মুখ দেখবে যখন, তুমি কখন এসে দাঁড়িয়ে আছো, চেনা চেনা লাগে ও দিন যায় কথা থাকে’ গানগুলো।

লেডিস’দের ভাষ্যমতে সাম্প্রতিক সময়ে এতো চমৎকার অনুষ্ঠান উত্তরা ক্লাবে হয়নি। সময় স্বল্পতার কারণে এক সময় গান পরিবেশনা শেষ করতে হয়। স্টেজ থেকে নামার পর একজন দর্শক লুইপা’র কাছে এসে বলেন, শাহনাজ আপার যে ছিলো দৃষ্টির সীমানায় গানটি গেয়ে আপনি আমাকে কাঁদিয়েছেন। ল্ইুপা প্রত্যুত্তরে বলেন, আমার জন্য দোয়া করবেন। অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ প্রসঙ্গে ইউসুফ বলেন,‘ আমার সেদিন জ্বর ছিলো। তারপরও চেষ্টা করেছি মনেরমতো করেই গান গাইতে। সবার ভালোবাসায় মুগ্ধ হয়েছি। এই মুগ্ধতার আবেশে নিজেকে রেখে সারা জীবন গান গেয়ে যেতে চাই।’ লুইপা বলেন,‘ যে ধরনের গান সেদিন গেয়েছি এই ধরনের গান শোনার জন্যও সমঝদার শ্রোতা দর্শকের প্রয়োজন হয়। সেদিনের লেডিস আড্ডায় সে ধরনের শ্রোতা দর্শক পেয়েছি বলেই গান গাইতেও কোনরকম ক্লান্তি লাগেনি। প্রতিটি গানের শেষে যে পরিমাণ উৎসাহ পেয়েছি, শিল্পী হিসেবে এটা সত্যিকারের অর্জন বলে মনে হয়। তখন শিল্পী হিসেবে নিজের গায়কী’কে সার্থক মনে হয়।’
ছবি : মোহসীন আহমেদ কাওছার

Leave a Reply

এটাও পছন্দ করতে পারেন

‘কৃষ্ণলীলা’র জন্য সাড়া পাচ্ছেন বিন্দু কণা

হয়ে গেলো বিউটির স্বপ্ন পূরণ

ফাহমিদা নবীর সুরে গাইলেন সৈয়দ আব্দুল হাদী

স্টেজ শো’তে অপ্রতিদ্বন্দ্বী আঁখি আলমগীরের ব্যস্ততা শুরু

বিরতির পর সিনেমার গানে দিঠি আনোয়ার

সেই পুতুলের ‘চোখের কোণে জল’

Copy link
Powered by Social Snap