সর্বশেষ আপডেট :December 6, 2019
Ovinews24

শুভ জন্মদিন সুর স্রষ্টা ফরিদ আহমেদ

October 2, 2019

অনেক কালজীয় গানের সুর স্রষ্টা তিনি। স্কুল বন্ধু বায়েজীদের কাছে গীটারে তার হাতেখড়ি হয়েছিলো। আর এরপর ফিরোজ সাঁইয়ের হাত ধরে সঙ্গীতাঙ্গনে পেশাগতভাবে তার যাত্রা শুরু হয়। তারপর তিনি হয়ে উঠেন একজন নির্ভরযোগ্য সঙ্গীত পরিচালক। বিস্তারিত জানাচ্ছেন অভি মঈনুদ্দীন
ফরিদ আহমেদ এমনই একজন সঙ্গীত পরিচালক যে গানের জন্য যে শিল্পীকে প্রয়োজন তাকে নিয়েই তিনি গান করেছেন। যদি কখনো সেই শিল্পীর সিডিউল না পাওয়া যায়, তখন তিনি অনেক সময় পর্যন্ত অপেক্ষাও করেছেন। তবুও যে গানের জন্য যাকে প্রয়োজন তাকে নিয়েই তিনি গান করেছেন। এর যথাযথ প্রমাণ মিলেছে বহুবার। ‘অধিকার’ নামক নতুন একটি চলচ্চিত্রের জন্য গান লিখেছেন বহুবার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারপ্রাপ্ত বরেণ্য গীতিকবি মোহাম্মদ রফিকউজ্জামান। সেই গানের সুর সঙ্গীতায়োজন করেন ফরিদ আহমেদ। কিন্তু গানটির জন্য ফরিদ আহমেদ শিল্পী নির্বাচন করেন অ্যান্ড্রু কিশোরকে। কিন্তু একমাসেরও বেশি সময়ের মধ্যে তার সিডিউল পাওয়া একটি কঠিনই ছিলো। তারপরও ফরিদ আহমেদ তার জন্যই অপেক্ষা করে অবশেষে গানটির রেকর্ডিং সম্পন্ন করেন ফরিদ আহমেদ। এটা অবশ্য বেশ কিছুদিন আগের কথা।

তবে একজন পেশাগত প্লে-ব্যাক সিঙ্গার হিসেবে গানটি গেয়ে অ্যাণ্ড্রু কিশোর বলেছিলেন,‘ গানটি খুবই ভালো হয়েছে’। একই ধরনের তৃপ্তি যেন ফরিদ আহমেদ’র মধ্যেও পাওয়া গেলো সেদিন।’ স্কুল জীবনে বন্ধু বায়েজীদের কাছে প্রথম গীটারে হাতেখড়ি হয় ফরিদ আহমেদ’র। সেই বন্ধু এখন অবসরপ্রাপ্ত লেঃ কর্ণেল। আর তার পরপরই ফিরোজ সাঁই’র হাত ধরে পেশাগতভাবে সঙ্গীতাঙ্গনে ফরিদ আহমেদ’র প্রবেশ ঘটে। ফিরোজ সাঁই’র ব্যাণ্ডদল ‘স্পন্দন’-এ তখন ফরিদ বেজ গীটার বাজাতেন। যখন ফিরােজ সাঁই ‘স্পন্দন’ ছেড়ে দিলেন তখনও তারসঙ্গে থেকে থেকে তিনি গীটার বাজাতেন। তাই পেশাগতভাবে সঙ্গীতাঙ্গনে নিজের সম্পৃক্ততার কথা বলতে গিয়ে ফরিদ আহমেদ কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন ফিরোজ সাঁইয়ের কাছে। কারণ তিনিই ফরিদ আহমেদকে শুরুতে শেক সাদী খান, সেলিম আশরাফ, জালাল আহমেদ, শাহনেওয়াজের সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দিয়েছিলেন। তাদের সঙ্গে তিনি গীটার বাজাতেন। কখনো বেজ গীটার আবার কখনো রিদম গীটাওর বাজাতেন। ফরিদ আহমেদ’র গুরু সমতুল্য সঙ্গীত পরিচালক সুবল দাস, সত্য সাহা, আলম খান, খন্দকার নূরুল আলম, আব্দুল আহাদ, আলাউদ্দিন আলী। তাদের সঙ্গে তিনি গীটার বাজাতেন। তবে সুবল দাস, আনোয়ার পারভেজ, আলম খান, আলী হোসেনের সঙ্গে তিনি সঙ্গীতায়োজনেরও কাজ করতেন। ‘বেদের মেয়ে জোছনা’খ্যাত সঙ্গীত পরিচালক আবু তাহেরের সঙ্গে বসে সুরও করতেন ফরিদ আহমেদ। সুর করার ব্যাপারে তাকে উৎসাহ দিতেন চিরসবুজ কন্ঠশিল্পী কুমার বিশ্বজিৎ। যে কারণে ফরিদ আহমেদ তার গানেরই প্রথম সুর করেন। লিটন অধিকারী রিন্টুর লেখা ‘তুমি ছাড়া আমি যেন মরুভূমি’। প্রথম গানের সুর করেই দারুণ প্রশংসিত হন ফরিদ আহমেদ। এরপর থেকে আজ পর্যন্ত বহু গানের সুর করেছেন তিনি। করেছেন সঙ্গীতায়োজনও। তারমধ্যে বিশেষ উল্লেখযোগ্য হচ্ছে হানিফ সংকেত’র ইত্যাদি’র টাইটেল সং ‘কেউ কেউ অবিরাম চুপি’। এটি লিখেছেন লুৎফর রহমান রিটন। এছাড়াও কুমার বিশ্বজিৎ’র ‘মনেরই রাগ অনুরাগ’,‘ আমি তোরই সাথে ভাসতে পারি মরণ খেয়ায় একসাথে’, রুনা লায়লার কন্ঠের ‘ফেরারী সাইরেন’, রুনা সাবিনার কন্ঠে ‘দলছুট প্রজাপতি;, চ্যানেল আই’র ‘আজ জন্মদিন’, ক্ষুদে গান রাজ’র ‘থিম সং’, ‘হৃদয়ে মাটি ও মানুষ’র থিম সং, সেরা কণ্ঠ’র থিম সং, সুমী শবনমের জনপ্রিয় গান ‘ললিতা, রেজওয়ানা চৌধুরী বন্যার কন্ঠে সিনেমার গান ‘তুমি আমার জীবনের গহীনে’সহ আরো অনেক জনপ্রিয় গানের সুরস্রষ্টা তিনি। প্রয়াত নূর হোসেন বলাইয়ের ‘নিষ্পত্তি’ চলচ্চিত্রের প্রথম সঙ্গীত পরিচালক হিসেবে কাজ করেন ফরিদ আহমেদ। ‘মেঘের অনেক রং’খ্যাত পরিচালক হারুনুর রশীদ নির্দেশিত ‘অধিকার’ নাটকের আবহ সঙ্গীতের কাজ তিনি প্রথম করেন। অরুণ চৌধুরীর নির্দেতি ‘ছোট ছোট ঢেউ’ ধারাবাহিকের আবহ সঙ্গীত তারই করা। ফরিদ আহমেদ বলেন,‘ জীবনে যা কিছুই পেয়েছি বা যা কিছু অর্জন সব সঙ্গীত জীবন থেকেই পেয়েছি। মানুষ আমাকে যেটুকু মূল্যায়ণ করেন, তা জেনে বুঝেই করেন। আমি তাতেই খুশি। তবে আমার অতৃপ্তি হচ্ছে আমি যখন পেশাগতভাবে কাজ শুরু করি তখন শাহনাজ রহমতুল্লাহ আপা গান গাওয়া ছেড়ে দেন। তাকে দিয়ে আমার গান গাওয়ানোর আফসোসটা সারা জীবনই থেকে যাবে।’ ফরিদ আহমেদ’র বাবা লাল মিয়া হাজরা, মা মনোয়ারা বেগম। তার স্ত্রী শিউলী আক্তার ও দুই মেয়ে দুর্দানা ও লীয়ানা। কষ্ট হয় যখন প্রয়াত বন্ধু শেখ ইসতিয়াকের কথা মনে পড়ে। ফরিদ আহমেদ’র পারিবারিক বন্ধু লিটন অধিকারী রিন্টু, অ্যাণ্ড্রু কিশোর ও কুমার বিশ্বজিৎ। ৩ অক্টোবর গুনী এই সঙ্গীত ব্যক্তিত্বর জন্মদিন। জন্মদিনে তিনি সবার কাছে দোয়া চেয়েছেন যেন সুস্থ থাকেন, ভালো থাকেন। শুভ জন্মদিন সুর স্রষ্টা ফরিদ আহমেদ।
ছবি: মোহসীন আহমেদ কাওছার

Leave a Reply

এটাও পছন্দ করতে পারেন

একজন সাচ্চু অনেকের পথ প্রদর্শক

প্রধানমন্ত্রীর সহযোগিতা চান চঞ্চল মাহমুদ ও তার স্ত্রী

লাইফটাইম অ্যাচিভম্যান্ট অ্যাওয়ার্ডে ভূষিত গাজী মাজহারুল আনোয়ার

Copy link
Powered by Social Snap